করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধিতে পর্যটনকেন্দ্র ও সামাজিক অনুষ্ঠানকে দোষারোপ করলেন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

0 18

করোনাভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধির পেছনে পর্যটনকেন্দ্র ও সামাজিক অনুষ্ঠান আয়োজনকে দায়ী করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক।করোনার প্রকোপ বাড়ায় সরকার স্বাস্থ্যবিধি ও সেবায় বেশি নজর দিচ্ছে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, পর্যটনকেন্দ্রগুলো থেকে করোনার সংক্রমণ বেশি হচ্ছে। সামাজিক অনুষ্ঠান, বিয়ে, ওয়াজ মাহফিলে লোক সীমিত করতে হবে। ওই সব জায়গা নিয়ন্ত্রণ করতে পারলে সংক্রমণ বাড়বে না।

আজ দুপুরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে এক বৈঠক শেষে এসব কথা বলেন জাহিদ মালেক।তিনি বলেন, সামাজিক অনুষ্ঠানে লোকজন সীমিত করতে হবে। যেসব জায়গায় করোনা বাড়ছে সেগুলো আমরা তুলে ধরেছি। ওইসব জায়গা নিয়ন্ত্রণ করতে পারলে সংক্রমণ বাড়বে না। তাই করোনার উৎপত্তিস্থল বন্ধ করতে হবে। করোনা মোকাবিলায় পিকনিক, বিয়ে, ওয়াজে লোকজন সীমিত করতে হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘করোনা বাড়ছে। গতকালও সাড়ে তিন হাজার মানুষ করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন। কেন করোনা বাড়ছে সেটি খেয়াল করতে হবে। করোনা বাড়ার উৎপত্তিস্থল চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিতে হবে। হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের সঙ্গে আমরা কথা বলেছি। কীভাবে আক্রান্ত হয়েছে সেটি জানার চেষ্টা করেছি। তারা বলছে কেউ কক্সবাজার, কেউ কুয়াকাটা, কেউ বান্দরবান বা পিকনিকে গিয়েছিলেন। তাই সেই জায়গায়গুলো সীমিত করতে হবে। আমরা এসব নিয়ন্ত্রণে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছি।’জেলা প্রশাসকদের কাছেও এ সংক্রান্ত চিঠি পাঠানো হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, তারা মোবাইল কোর্ট বসাবে, প্রয়োজনে মানুষকে জরিমানাও করবে।

জাহিদ মালেক বলেন, ঢাকা মেডিকেলে করোনা রোগীতে ভরে গেছে, ঢাকার বাইরে অনেকটা ফাঁকা। কিছু নন-কোভিড হাসপাতাল করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের আওতায় নিয়ে এসেছি। লালকুঠি হাসপাতাল, মহানগর হাসপাতাল, সরকারি কর্মচারী হাসপাতালসহ কুর্মিটোলা হাসপাতালে বেড বাড়ানোর জন্য বলেছি। টঙ্গী, গাজীপুর, টাঙ্গাইলেও ব্যবস্থা নিয়েছি। এগুলো করতে পারলে ৩ হাজার নতুন বেড সৃষ্টি করতে পারব। এর মধ্যে ১৭শ থেকে ১৮শ নন-কোভিড বেড ছিল। সেসব বেড থেকে রোগী সরিয়ে নিতে হয়েছে। সেখানে করোনা রোগী ভর্তি করতে হয়েছে। আমাদের করোনা রোগী কমাতে হবে।

তিনি মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত সভাশেষে আরও বলেন, এমবিবিএস পরীক্ষায় ১লাখ ২২ হাজার আবেদন জমা পড়েছে। সারাদেশে ৫৫টি কেন্দ্রে পরীক্ষা হবে। পরীক্ষা নেয়ার সময় স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করা হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.