আরও ১ বছর পেছালো প্রাথমিক-মাধ্যমিকের নতুন শিক্ষাক্রম প্রণয়ন

0 17

প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের জন্যে নতুন শিক্ষাক্রম প্রণয়নের কাজ মহামারির কারণে কর্তৃপক্ষ নতুন পাঠ্যপুস্তক প্রস্তুত করতে না পারায় দ্বিতীয়বারের মতো স্থগিত করা হচ্ছে।

২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে শিক্ষার্থীদের জন্য নতুন শিক্ষাক্রম চালু করার পরিকল্পনা করেছিল। জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। মহামারির কারণে তা পিছিয়ে ২০২২ সালের জানুয়ারি থেকে সরকার নতুন শিক্ষাক্রম চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুই শীর্ষ কর্মকর্তা জানান, এটি এখন আরও এক বছর পিছিয়ে ২০২৩ সালের জানুয়ারিতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।তারা জানান, বৃহস্পতিবার শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ কর্মকর্তাদের ভার্চুয়াল বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এ সভায় অংশ নেওয়া একজন শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, ‘সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে ২০২৩ সালের জানুয়ারিতে ১ম, ৬ষ্ঠ ও ৭ম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা নতুন বইগুলো পাবে।’

এ বৈঠকে আরও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে, পাইলট প্রোগ্রামের অংশ হিসেবে ২০২২ সালে কয়েকটি বিদ্যালয়ে ১ম, ৬ষ্ঠ ও ৭ম শ্রেণির নতুন বই দেওয়া হবে। এনসিটিবি কর্মকর্তারা জানান, নতুন বই প্রস্তুত করার সময় তারা যে সমস্যায় পড়েছিল, তার পরিপ্রেক্ষিতে সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এনসিটিবি সূত্র জানিয়েছে, এতদিনে বইগুলোর সব পাণ্ডুলিপি প্রস্তুত হওয়ার কথা ছিল এবং এনসিটিবির নতুন বইগুলোর মুদ্রণের টেন্ডার প্রক্রিয়ায় যাওয়ার কথা ছিল। ‘তবে আমরা নতুন বইগুলো লেখা শেষ করতে পারিনি’,বলেন এনসিটিবির এক সদস্য ।

নতুন শিক্ষাক্রম তাত্ত্বিক জ্ঞানের চেয়ে দক্ষতার ওপর জোর দেবে

এদিকে নতুন শিক্ষাক্রমে এনসিটিবি ৫ম শ্রেণিতে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা (পিইসি) ও অষ্টম শ্রেণিতে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষার বিষয়ে কোনো প্রস্তাব দেয়নি।মাধ্যমিকে বিজ্ঞান, মানবিক ও ব্যবসায়িক শাখাগুলো একত্রিত করে কেবলমাত্র দশম শ্রেণির সিলেবাস অনুযায়ী ৫টি বিষয়ে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) এবং সমমানের পরীক্ষাগুলো নেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে। শিক্ষাক্রমে ভাষা শেখা, যোগাযোগ, গণিত এবং যুক্তি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, আইসিটি, পরিবেশ ও জলবায়ু এবং মূল্যবোধ ও নৈতিকতা শেখার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা (এইচএসসি) একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণিতে ২টি ধাপে অনুষ্ঠিত হবে। নতুন শিক্ষাক্রমে শুক্রবারের পরিবর্তে, স্কুলগুলো শুক্র ও শনিবার দুই দিন ছুটির প্রস্তাব করা হয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.