ফের ‘লকডাউন’ বাড়বে কি না সিদ্ধান্ত বৃহস্পতিবার

0 14

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সোমবার থেকে শুরু হওয়া লকডাউনের সময় বাড়ানো হবে কিনা সে বিষয়ে  আগামী বৃহস্পতিবার সিদ্ধান্ত হবে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

আজ সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান সচিব।

২০২০ সালের ৮ মার্চ বাংলাদেশে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়লে ২৩ মার্চ প্রথমবার সাধারণ ছুটির ঘোষণা করেছিল সরকার। সে সময় সব অফিস আদালত, কল-কারখানা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে সারা দেশে সব ধরনের যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়। ছুটির মধ্যে সব কিছু বন্ধ থাকার সেই পরিস্থিতি ‘লকডাউন’ হিসেবে পরিচিতি পায়।

করোনা সংক্রমণ কমে আসায় ধীরে ধীরে সবকিছু স্বাভাবিক হতে থাকে। মার্চের শেষ দিকে করোনা পরিস্থিতি খারাপ হতে থাকলে ভাইরাসটির বিস্তার রোধে সারাদেশে সাত দিনের ‘লকডাউন’ শুরু হয়। এর আওতায় মানুষের কাজ ও চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। গণপরিবহন চলছে না। জরুরি কাজের জন্য সীমিত পরিসরে অফিস খোলা থাকছে। তবে লকডাউনের প্রথম দিনে দেখা গেছে ঢিলেঢালাভাব।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘দেখি সাতদিন পর কী অবস্থা হয়। বৃহস্পতিবার আবার রিভিউ করা হবে ইনশাল্লাহ।’সরকারি বিধিনিষেধের পাশাপাশি করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে মানুষের সহযোগিতার ওপরও গুরুত্ব দিচ্ছেন সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

‘মানুষকে কো-অপারেট করতে হবে। আমরা সে কথা বারবার বলছি। সবাই যদি মাস্ক ইউজ করে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে তাহলে অসুবিধা হওয়ার কথা না।’লকডাউন বাস্তবায়ন প্রশ্ন করা হলে সচিব বলেন, ‘নিষেধাজ্ঞা বলেছি কিন্তু, আমরা লকডাউন ঠিক বলিনি।’মন্ত্রিসভার ভার্চ্যুয়াল বৈঠকে দেওয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যকে উদ্ধৃতি করে আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, কোভিড–১৯ টিকার দ্বিতীয় ডোজ ৮ এপ্রিল থেকে দেওয়া শুরু হবে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব ‘লকডাউনের’ মধ্যে বইমেলা চলা নিয়ে করা এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘এটি সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়কে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তাদের সঙ্গে কথা বলতে হবে।’

Leave A Reply

Your email address will not be published.