গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ধরে রাখতে মাদারীপুরে পিঠাপুলির মেলা।

1 22

গ্রামের অনেকের বাড়িতে হরেক রকমের পিঠা তৈরি হয় এসময়। আর সেই পিঠার আয়োজন যদি হয় খোদ মাদারীপুরের গ্রামের কোন মাঠে তাহলে মন্দ হয় না। মাদারীপুরবাসীকে শীতের পিঠা আস্বাদনের জন্য শীতের সোমবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পযন্ত নানা এলাকার পিঠার সুগন্ধে ভরে উঠেছিল সদর উপজেলার মস্তফাপুরের বালিয়া কামিনিটি ক্লিনিকের মাঠ। একাধিক স্টলে শীতের নানা বাহারি পিঠার উপস্থাপন ও আধিক্য দেখা গেছে। মস্তফাপুরের বালিয়া যুব সমাজ ঐতিহ্য ধরে রাখতে বাঙালির পিঠা পার্বণের আনন্দধারা ও যুব সমাজকে মাদক থেকে দুরে রাখতে এ আয়োজন করে। আর এই পিঠা মেলাকে সাধুবাদ জানিয়েছে দর্শনার্থীরা।

এইনিয়ে মাদারীপুর থেকে স্টাফ রিপোর্টার আকাশ আহম্মেদ সোহেল জানিয়েছেন,পিঠাপুলির দেশ বাংলাদেশ। পিঠা এ দেশের একটি ঐতিহ্যবাহী খাবার। পৌষের হিমেল হাওয়া ছাড়া যেমন শীতকে কল্পনা করা যায় না, ঠিক তেমনি পিঠা ছাড়াও বাঙালির ঐতিহ্য ভাবা যায় না। তবে অঞ্চলভেদে ভিন্ন ভিন্ন পিঠা যেমন দেখা যায়, তেমনি একেকটি পিঠার বিভিন্ন নামও লক্ষ করা যায়। আর সেসব পিঠার নামের বাহার যেনো পিঠা খাওয়ার তৃপ্তি আরো বাড়িয়ে দেয়। এসব পিঠার মধ্যে বেশ পরিচিত কিছু পিঠা- চিতই, ভাঁপা, পাটিসাপটা, নকশি, সেমাই, সাঁজের, রসের, তেলের, পাক্কুন, ডালের, বিউটি পাপড়ি, মাংস, পুলিপিঠা, সুন্দরী ডিমের পিঠা, কুমড়া পিঠা, আনারস পিঠা, ঝাল পিঠা, ছিছ পিঠা, ছি রুটি পিঠা ইত্যাদি ছাড়াও বিভিন্ন অঞ্চলে হরেক নামের বাহারি সব পিঠা দেখা যায়। সেইসব পিঠার সুগন্ধে মাদারীপুরের বালিয়া মাঠ সুগন্ধে ভরে উঠেছিল। চারদিকে হিম হিম শীতল আবহাওয়া।

গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ধরে রাখতে ও আগামী ভবিষৎ প্রজম্মকে জানাতে এই পিঠা উৎসবের আয়োজন প্রতি বছর করা হলে সবার জন্য ভাল হয় এমনটাই আশা এলাকাবাসীর

দর্শনার্থী ও এলাকাবাসীর মন্তব্য,আমরা টাকার জন্য আজ এই পিঠা উৎসবে আসি নাই। এসেছি একদিনের জন্য হলেও সবাই আনন্দ করে দিনটি পালন করতে। তাছাড় এরকম আয়োজন হলে আমাদের হারিয়ে যাওয়া পিঠারগুলোর ঐতিহ্য আবার ফিরে পাবে এবং যুব সমাজ একদিনের জন্য হলেও মাদক থেকে দুরে থাকবে।

পিঠা মেলার বিক্রেতারা জানিয়েছেন,আমরা এখন আর আগের মত পিঠা দেখতে পাইনা এবং যুব সমাজ ও গ্রামের মানুষকে আনন্দ দিয়ে মনে করিয়ে দেয়ার জন্য এই পিঠার আয়োজন। তবে সবার সহযোগীতা পেলে আগামীতেও এই আয়োজন করবো।

পে.অফ: শুধু গ্রামে না প্রতিটি জেলায় এরকম পিঠাসহ সাংস্কৃতিক আয়োজন হলে যুবসমাজকে মাদক থেকে দুরে রাখা যাবে তাই এই ব্যাপারে সরকারি উদ্যোগ গ্রহন করা হলে দেশ ও সমাজের জন্য ভাল হবে মনে করে এলাকাবাসী।

 

1 Comment
  1. […] মাদারীপুরে কালকিনি পৌরসভা নির্বাচনী প্রচারণার সময় পুলিশের গাড়িতে তুলে নেয়ার ১৪ ঘণ্টা পর বাড়ি ফিরেছেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মশিউর রহমান সবুজ। রবিবার ভোর ৪টার দিকে তিনি কালকিনির নিজ বাড়িতে ফিরেছেন বলে জানিয়েছেন তার পরিবার। সবুজ নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় শনিবার সন্ধ্যায় থানা ঘেরাওসহ নৌকা প্রার্থীর সমর্থকদের সাথে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনায় অর্ধশতাধিক আহত হয়েছে। মেয়র প্রার্থীর স্বজন ও সমর্থকরা জানায়, শনিবার দুপুর ২টার দিকে কালকিনি পৌর এলাকার পালপাড়ায় নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছিলেন নারিকেল গাছ প্রতীকের মেয়র প্রার্থী মশিউর রহমান সবুজ। এ সময় তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে একটি কল দেন মাদারীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব হাসান। তাৎক্ষণিক সেখানে কালকিনি থানার ওসি মো. নাছিরউদ্দিন গাড়ি নিয়ে হাজির হন। পরে সেখান থেকে সবুজকে পুলিশের গাড়িতে করে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। প্রতিবাদে বিক্ষোভ করে কালকিনি থানা ঘেরাও করেন সবুজের সমর্থকরা। টায়ার জ্বালিয়ে স্লোগান দেন বিক্ষুব্ধরা। এ সময় কালকিনি-ভুরঘাটা ও কালকিনি-মাদারীপুর আঞ্চলিক সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। বিক্ষোভ মিছিলে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে হামলা চালান নৌকার সমর্থকরা। পরে দুপক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এসময় দোকানপাট ভাংচুরসহ অন্তত অর্ধশত মানুষ আহত হন। সংঘর্ষে রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ। এ ব্যাপারে স্বতন্ত্র প্রার্থী মসিউর রহমান সবুজের স্ত্রী ফোনে জানান, আমাদের অনেক লোক আহত হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। নৌকার প্রার্থী এস.এম হানিফ ফোনে জানান, শুধু শুধু আমার নেতা কর্মী ও সমর্থকদের উপর হামলা করেছে। আমার অনেক লোককে মেরে কুপিয়ে রক্তাক্ত করেছে। আনেকের অবস্থা আশংকাজনক। মাদারীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আব্দুল হান্নান জানান, মেয়র প্রার্থী মশিউর রহমান সবুজ নিজ বাড়িতে আছেন। তার কোনো ক্ষতি হয়নি। তবে, পুলিশ তাকে তুলে নিয়ে গেছে এ বিষয়টি অস্বীকার করেন তিনি। উল্লেখ্য, এরআগে বৃহস্পতিবার এক উঠান বৈঠকের বক্তব্যে কালকিনি উপজেলা আ.লীগের দপ্তর সম্পাদক বেলাল হোসেন সরদার হুমকি স্বরুপ বলেছিলেন, নৌকা মার্কার নির্বাচন করলে ভালোভাবে থাকতে পারবেন। আর নাহলে ঘরে ঘুমানোর কোনো সুযোগ নেই। আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি মাদারীপুরের কালকিনি পৌরসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। […]

Leave A Reply

Your email address will not be published.