সর্বোচ্চ ৯৭৫ টাকা, ১২ কেজি এলপি গ্যাসের দাম

0 13

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) বাসা-বাড়িতে রান্নায় ব্যবহৃত লিকুইড ন্যাচারাল গ্যাসের (এলপিজি) দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে

আজ সোমবার বিইআরসি অনলাইনে সংবাদ সম্মেলনে দাম ঘোষণা করে। চলতি বছরের ১৪ জানুয়ারি এলপি গ্যাসের দাম নির্ধারণ নিয়ে গণশুনানি করে জ্বালানি খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি।বেসরকারি খাতে ১২ কেজি সিলিন্ডারের এলপি গ্যাসের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ৯৭৫ টাকা। আর রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানির সাড়ে ১২ কেজি সিলিন্ডারের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৫৯১ টাকা।

গণশুনানি শেষে সবকিছু বিচার-বিবেচনা ও দাখিল করা তথ্য যাচাই করে একাধিক সভার মাধ্যমে দাম চূড়ান্ত করেছে কমিশন। এই দাম আজ থেকে কার্যকর হবে বলে জানান, বিইআরসির চেয়ারম্যান মো. আবদুল জলিলঅন্যদিকে গাড়িতে ব্যবহৃত এলপি গ্যাসের দামও নির্ধারণ করেছে সংস্থাটি। প্রতি লিটার ৪৭ টাকা ৯২ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছে বলেও বিইআরসির আদেশে আরও বলা হয়।এলপিজি গ্যাসের মূল্য সারাদেশে অভিন্ন থাকবে বলেও জানিয়েছেন বিইআরসি চেয়ারম্যান। একইসঙ্গে সরকার অনুমোদিত বা লাইসেন্সধারী ব্যবসায়ী কমিশনের আদেশ বাস্তবায়ন বাধ্য থাকবে বলেও জানান তিনি।

২০২০ সালে ডিসেম্বরে এলপি গ্যাস সরবরাহকারী কোম্পানিগুলো দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দেয় বিইআরসিতে । গণশুনানির আগে তাদের প্রস্তাব মূল্যায়ন করে বিইআরসি গঠিত কারিগরি মূল্যায়ন কমিটি।এলপি গ্যাসের ১২ কেজির সিলিন্ডারের দাম ১ হাজার ২৫৯ টাকা নির্ধারণের প্রস্তাব দেয় বেসরকারি খাতের কোম্পানিগুলো। আর রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান সাড়ে ১২ কেজির সিলিন্ডারের দাম ৬০০ থেকে বাড়িয়ে ৭০০ টাকা করা প্রস্তাব করে।তবে এই প্রসঙ্গে বিইআরসি গঠিত কারিগরি মূল্যায়ন কমিটি ভিন্ন এক প্রস্তাব করে। তাদের প্রস্তাব, বেসরকারি খাতের বোতলজাত গ্যাসের মূল্য ৮৬৬ টাকা ও সরকারি খাতে এলপিজিএলের দাম ৯০২।বোতলজাত গ্যাসের দাম নির্ধারণে কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) ২০১৬ সালে রিট আবেদন করে। তাদের আবেদনের ভিত্তিতে এক মাসের মধ্যে গণশুনানির মাধ্যমে দাম পুনর্নির্ধারণ করে প্রতিবেদন দাখিল করতে গত বছরের ২৫ আগস্ট নির্দেশ দিয়েছিলেন উচ্চ আদালত।

 

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন উচ্চ আদালতের বেঁধে দেওয়া সময়েরে মধ্যে দাম নির্ধারণ করতে না পারায় আদালতের কাছে ক্ষমা চেয়ে বাড়িয়ে নেসময় ।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.