ইউটিউবার বদলে দিল একটি গ্রামের নাম,পৃথিবীর প্রথম ইউটিউব ভিলেজ

0 56

একজন ইউটিউবার বদলে দিল একটি গ্রামের নাম, যেটা এখন ইউটিউব গ্রাম নামেই পরিচিত পৃথিবীর প্রথম ইউটিউব ভিলেজ ঘুরে আসতে পারেন আপনিও।শে এ্যারাউন্ড মি বিডি নামে একটি ইউটিউব চ্যানেল খোলেন ২০১৭ সালে। প্রথমে শখের বশে বিভিন্ন বাজারের মাছের দৃশ্য ধারন করে সেটা ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করতো লিটন আলী এবং দিনে দিনে দেশী-বিদেশী ভিউয়ার এবং ফলোয়ার বাড়তে থাকায় চ্যানেল থেকে শুরু হয় আর্থিক মুনাফা, যার ফলে কাজের আগ্রহ বাড়তে থাকে,তারপর এটাকে আরও বেশি আকর্ষনীয় করতে তার মামা দেলোয়ারকে সংগে নিয়ে শুরু করেন নতুন পদ্ধতিতে ভিডিও বানানো। পরে সেটা আপলোড করা হত ইউটিউব চ্যানেলটিতে যার বর্তমান সাবস্ক্রাইবার ৩ মিলিয়নের উপরে। বর্তমানে এর সাথে আরও চারটি চ্যানেল যোগ হয়েছে। সে গুলো হল ভিলেজ গ্রান্ড পা’স কুকিং, দি ফিসিং লেডি, ক্রিয়েটিভ বয়েজ ক্রাফট, আরবিন জামান।
চ্যানেলের বিভিন্ন কার্যক্রম নিয়ে কথা হয় এই দলের ক্যামেরাপার্সন সজীব হোসেন সংগে
তবে কিভাবে খোকসা উপজেলার শিমুলিয়া গ্রাম ইউটিউব ভিলেজ নামে পরিচিত হল সেটা দেখে নেয়া যাক ।
দল বেঁধে রান্নার দৃশ্য আজকের খাবারের তালিকায় রয়েছে পাঁচ পড়ান ভুনা, ও গ্রাম বাংলার হলই পিঠা। সপ্তাহে ২/৩ দিন বিভিন্ন রকমের খাবার রান্না করা হয়, রান্না শেষে গ্রামের লোকজন সহ অতিথিদের খাবার পরিবেশন করে খাওয়ানো হয়। আর এই দলের পরিচালক লিটন আলী শেখের মামা দেলোয়ার মাষ্টার।
বর্তমানে এই দলে রয়েছেন ক্যামেরাপার্সন সহ মোট ৪০ জন, তার মধ্যে নারী সদস্য রয়েছেন ১৪ জন। কথা হয় এই দলের নারী সদস্যদের সাথে, ইউটিউবের কল্যাণে কিভাবে তারা তাদের পরিবারকে সহযোগীতা করছে,
ইতি মধ্যে খোকসার শিমুলিয়া গ্রামের এই ভিন্নরকম আয়োজনের খবর পৌছে গেছে দেশ বিদেশে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে দর্শনার্থীরাও আসছেন ইউটিউব ভিলেজে। কথা হয় তাদের সাথেও
অন্যদিকে ভিলেজ গ্রান্ড পা’স কুকিং চ্যানেলটির জন্য চলছে রান্না। খাবারের তালিকায় রয়েছে সামুদ্রিক মাছ ও ভাত। কথা হয় এই গ্র্যান্ড’পা দের সাথে তারা নিজেরা রান্না করে, সেই খাবার আগে নিজে খায় তারপর খাওয়ায় অন্যদের। কিন্ত কারা খায় এই খাবার শুনে নেওয়া যাক তাদের মুখ থেকেই।
বর্তমানে ইউটিউব চ্যানেলের আয় থেকে সমাজের পিছিয়ে পড়া মানুষের জন্য সাহায্য সহযোগীতা করা হয় বলে জানান এই দলের পরিচালক দেলোয়ার মাষ্টার

ইউটিউব নিয়ে এমন ব্যাতিক্রম উদ্যেগ শিমুলিয়া গ্রামকে পরিচিত করেছে দেশে-বিদেশে।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.