বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে কিশোরগঞ্জে আহত ৩০।

0 3

পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়েছে বিএনপি নেতাকর্মীরা। এতে পুলিশের পাঁচ সদস্যসহ অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে সাংবাদিকও আছেন।

আজ বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শহরের পুরান থানা ও একরামপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। প্রায় দুই ঘণ্টা ধরে চলা সংঘর্ষে ওই দুই এলাকা এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ও শটগানের ফাঁকা গুলি ছোঁড়ে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, হেফাজত ইসলামের হরতালের দিন কিশোরগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে হামলা-ভাঙচুর এবং অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। রাতে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা জেলা ও উপজেলা বিএনপি কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেন। এর প্রতিবাদে মঙ্গলবার সকালে বিএনপি নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে একরামপুর এলাকা দিয়ে শহরে প্রবেশের সময় পুলিশ বাধা দেয়। একপর্যায়ে বিএনপি নেতাকর্মীরা পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ান। সেই সঙ্গে টায়ার জ্বালিয়ে সড়কে অবরোধ করেন। এ সময় পুলিশ রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে। আড়াই ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষে কিশোরগঞ্জ পৌর বিএনপির সভাপতি আলমগীর, জেলা ছাত্রদলের সহসভাপতি সায়েদ সুমনসহ দলটির ২৪ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. মাজহারুল ইসলাম।

তিনি আরও জানান, কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে দলের নেতাকর্মীরা শান্তিপূর্ণ মিছিল বের করলে পুলিশ মিছিলে হামলা করে। এতে দলের অন্তত ২৪ জন আহত হয়।

এছাড়া কিশোরগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবু বকর সিদ্দিক বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে জনসমাগমে নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও বিএনপির নেতাকর্মীরা শহরের পুরান থানা এলাকায় জড়ো হন। তাদের জড়ো হতে নিষেধ করলে আমাদের ওপর হামলা চালান। এতে পুলিশের পাঁচ সদস্য আহত হন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.