কোনো বাটপার নেতার পেছনে রাজনীতি করবেন না : আবদুল কাদের মির্জা

1 18

কোনো বাটপার নেতার পেছনে রাজনীতি করবেন না বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা বলেছেন, বুধবার কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাট জিরোপয়েন্টের বঙ্গবন্ধু চত্বরে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে ফুল দেয়ার পর তিনি এ কথা বলেন।কাদের মির্জা বলেন, ‘আমার নেত্রী আমাকে বলেছেন, তুমি শান্ত থাক। বিচার আল্লাহর কাছে দিব। আর সমস্ত কাগজপত্র প্রস্তুত করে রেখেছি। সেগুলো আমি জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতে তুলে দিব। আমি কোনো বাটপার নেতার পেছনে রাজনীতি করব না। আমি রাজনীতি করি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে। আমি রাজনীতি করি শেখ হাসিনার উন্নয়নের।

কাদের মির্জা ৯ মার্চের বসুরহাটের সহিংসতার ঘটনাকে কালরাত হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, ‘আমার পৌরসভায় প্রায় দুই হাজার গুলি করেছে। একটা লোককেও গ্রেফতার করেনি পুলিশ। আজকে ব্যবসায়ীদের বাড়িতে পুলিশ হানা দিচ্ছে। ব্যবসায়ীরা যখন এই অস্ত্রধারীদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছে, তখন পুলিশ তাদের ওপর হামলা করেছে। আমি কারো রক্তচক্ষুকে ভয় করি না। এখানে যত ঘটনা ঘটছে, ঢাকা থেকে বিচার বিভাগীয় তদন্ত করতে হবে। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) মামলার তদন্ত করতে দেয়া হয়েছে। এসপি সাহেব পিবিআইকে প্রভাবিত করে মামলাগুলো ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করছেন।

কাদের মির্জা বলেন, ‘আজকে এখানে যে চক্রান্ত আর ষড়যন্ত্র চলছে, তা একতরফা। আমরা মামলা দিয়েছি, আমাদের মামলা নেয়নি। আমরা আদালতে গিয়ে মামলা করেছি। একটা লোকও গ্রেফতার করা হয়নি। অথচ গত দুই দিনে আমাদের ১১ জন নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আমাদের একজন নেতা কাঞ্চন (মাইন উদ্দিন)। তার ঘরে ডিবি ও এখানকার তদন্ত অফিসারের (পরিদর্শক–তদন্ত) নেতৃত্বে বাদল বাহিনীর দুইটা লোককে সাথে নিয়ে কাঞ্চনের ঘরে ঢুকেছে। তারা ঘরে দুইটা বুলেট রেখে তার বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছে।’

কাদের মির্জা দাবি করেন, ‘নোয়াখালীর ডিসি, এসপি এবং ডিবির যে ওসি আছে, ওসি, কোম্পানীগঞ্জের ইউএনও, এসিল্যান্ড, ওসি-তদন্ত; তাদের প্রত্যাহার না করলে কোম্পানীগঞ্জে শান্তি আসবে না। আর কোম্পানীগঞ্জের যত ঘটনা আছে, এগুলো তদন্তে বিচার বিভাগীয় তদন্ত করতে হবে। তদন্তে যদি আমিও দোষী হই, আমার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হোক।’

Leave A Reply

Your email address will not be published.